কলকাতা নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ কলকাতা পুরসভার পুরপ্রশাসক পদ থেকে ইস্তফা দিলেন রাজ্যের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। শনিবার নির্বাচন কমিশনের তরফ থেকে নির্দেশিকা জারি করা বলা হয় যে, রাজ্যের পুরসভার দায়িত্বে কোনও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব থাকতে পারবে না। রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের জায়গায় কোনও সরকারি আমলাকে দায়িত্ব দিতে হবে। সোমবার সকাল দশটার মধ্যে এই নির্দেশ কার্যকর করার নির্দেশ দিয়েছিল কমিশন। আর সেই মর্মেই আজ ইস্তফা দিলেন ফিরহাদ হাকিম।

নির্বাচন কমিশনের তরফ থেকে বলা হয়েছিল যে, নির্বাচনে স্বচ্ছতা আনতেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। আর এই নির্দেশের পালনও করতে হবে। বলে রাখি, গতবছর এপ্রিল মাসে কলকতা-হাওড়া সহ ১১২ টি পুরসভায় নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনার কারণে সেই নির্বাচন করানো সম্ভব হয়নি। পুরসভায় মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়ার কারণে মেয়রদের বদলে পুরপ্রশাসক নিযুক্ত করা হয়। আর কলকাতার পুরপ্রশাসকের দায়িত্ব পান কলকাতার প্রাক্তন মেয়র তথা তৃণমূল নেতা ফিরহাদ হাকিম। বিজেপি ফিরহাদ হাকিমকে কলকাতা পুরসভার পুরপ্রশাসক হিসেবে নিযুক্ত করার বিরুদ্ধে হাইকোর্টেও গিয়েছিল। কিন্তু সেখানে বিজেপির আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়।

বলে রাখি, বর্তমানে রাজ্যের পুরপ্রশাসকদের পদে ছিলেন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা। আর তাঁদের মধ্যে অনেকেই এবার বিধানসভা নির্বাচনে প্রার্থীও হয়েছে। কলকাতা পুরসভার পুরপ্রশাসক ফিরহাদ হাকিম কলকাতা বন্দর থেকে তৃণমূলের প্রার্থী। আবার বৈদ্যবাটি পুরসভার পুরপ্রশাসক অরিন্দম গুঁই চাঁপদানি কেন্দ্র থেকে নির্বাচনে লড়ছেন। শিলিগুড়ির পুরপ্রশাসক অশোক ভট্টাচার্য শিলিগুড়ি থেকে সিপিএম-এর হয়ে নির্বাচনে লড়ছেন।

বিজেপির তরফ থেকে অভিযোগ করে বলা হয়েছিল যে, রাজ্যের পুরসভার প্রশাসকরা পক্ষপাতিত্ব করছেন। আর নির্বাচনে তাঁরা প্রভাবও ফেলতে পারেন। সেই কারণে কমিশনের কাছে নালিশ জানিয়েছিল বিজেপি। আর এবার সেই অভিযোগকে মান্যতা দিয়ে নির্বাচন কমিশন কড়া নির্দেশিকা জারি করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.